জেলে না দিয়ে ছেলেকে মায়ের পা ধরে মাফ চাওয়ালেন এসপি

নাটোর সদর উপজেলার ঋষী নওগাঁ গ্রামের আবুল কাশেম ও তার স্ত্রী ফুলিনেছা। দুইজনই বৃ'দ্ধ হওয়ায় তিন ছেলের কাছে অ’বহেলিত। তিন সন্তানের মধ্যে সবচেয়ে অবাধ্য বড় ছেলে জাকির হোসেন। জাকির হোসেনের দ্বারা তার পিতা-মাতা সবচেয়ে বেশী অবহেলার শি'কার হন।

অ’বহেলার পাশাপাশি জাকির তার মা ফুলিনেছাকে প্রতিনিয়ত মা’রপিট করতেন। তাই অবাধ্য সন্তানকে মায়ের পা ধরে মাফ চাওয়ালেন নাটোরের পু’লিশ সুপার লিটন কুমা'র সাহা।

পাশাপাশি সন্তানকে শেষ বারের মতো সতর্ক করেছেন পু’লিশ সুপার। বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরেও জাকির তার মাকে মা’রপিট করেন। নি'র্যা'তিত মা ফুলিনেছা অ’ভিযোগ দিতে আসেন পু’লিশ সুপার লিটন কুমা'র সাহার কাছে।

Interesting For You

মায়ের অ'ভিযোগের প্রেক্ষিতে 'বিকেলে পু’লিশ জাকিরকে আ’টক করে পু’লিশ সুপারের কাছে আনে। পু’লিশ সুপার জাকিরকে তার মায়ের পা ধরে ক্ষ'মা প্রার্থনা করান।

নাটোরের পু’লিশ সুপার লিটন কুমা'র সাহা জানান, জাকির তার পিতা-মাতাকে অবহেলার পাশাপাশি মাকে প্রতিনিয়ত মা'রতেন। আজও মাকে মা’রপিট করেন। লিটন কুমা'র বলেন, জাকির আজও মা’রপিট কারা'র বি'ষয়টি স্বীকার করলে তার মায়ের পা ধরে ক্ষ'মা চাওয়ান।

পাশাপাশি মা কে নি'র্যা'তন না করা ও পিতা-মাতাকে অবহেলা না করার অঙ্গীকার করেছে জাকির। জাকির পুনরায় এই ধরনের ঘটনা ঘটালে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান পু’লিশ সুপার।